হালুয়াঘাটে কন্যা ধর্ষণে পিতা আটক

হালুয়াঘাটে কন্যা ধর্ষণে পিতা আটক

মোঃ রাসেল হোসেন, ময়মনসিংহ জেলা প্রতিনিধি
অবশেষে ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটের আলোচিত চাঞ্চল্যকর মামলা নিজ কন্যাকে ধর্ষণের অভিযোগে ধর্ষণকারী হেলাল ডিবি পুলিশের হাতে আটক হয়েছে। ১৪ নভেম্বর ধর্ষক হেলালকে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে বলে জানান হালুয়াঘাট থানার ওসি (তদন্ত) মোঃ লাল মিয়া।
থানা সুত্রে জানা যায়, ধর্ষক হেলালের বিরুদ্ধে গত ১৩ সেপ্টেম্বর নিজ শিশু কন্যা (১০)কে ধর্ষণের অভিযোগে ১৫ সেপ্টেম্বর হালুয়াঘাট থানায় মামলা দায়ের করেন তার স্ত্রী মোছাঃ রাজিয়া খাতুন। মামলার পর থেকেই পলাতক ছিলেন পিতা হেলাল। অভিযোগের দুমাস পর ময়মনসিংহ পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম পিপিএম বিপিএম এর নেতৃত্বে ডিবি পুলিশের আইসিটি বিশেষজ্ঞ টিমের সহায়তায় ডিবির এস আই ইফতেয়ার আহমেদ অভিযান চালিয়ে গাজীপুর কোনাবাড়ির দেওয়ালী বাড়ি এলাকা থেকে তাকে ১৩ নভেম্বর বিকেলে আটক করেন। আটকৃত হেলাল উপজেলার স্বদেশী ইউনিয়নের উত্তর ইটাখলা বোয়ালজানা গ্রামের ছফুর উদ্দিনের পুত্র।
ধর্ষিতার মাতা জানান, ঘটনার আগের দিন বোয়াল মাছ দিয়ে কৈচাপুর মাইজপাড়া আমার পিত্রালয়ে পাঠিয়ে দেয় স্বামী হেলাল। আমার কন্যা তার পিতার কাছেই ছিলো। এই সুযোগে আমার লম্পট স্বামী কন্যাকে ধর্ষণ করে। আমার কন্যা কৃষ্টপুর সরকারি প্রাথমকি বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্রী।

মন্তব্য নেই

উত্তর