ছাত্রজীবনে সঙ্গের ভূমিকা

ছাত্রজীবনে সঙ্গের ভূমিকা

হাবিবুল বারি হাবিব : ছাত্রজীবন মানুষের জীবনের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ন একটি সময়। একজন শিক্ষিত ব্যক্তির জীবনের প্রতিটি ধাপেই ছাত্রজীবন ভূমিকা রেখে চলে। বর্তমানের একজন ছেলে বা মেয়ের জীবন কোন দিকে যাবে, জীবন পরিচালিত হবে কোন মানে, তা মূলত ছাত্রজীবনেই নির্ধারিত হয়ে থাকে। যে ব্যক্তির ছাত্রজীবন যতটা উজ্জ্বল, তার ভবিষ্যৎ জীবনও ততোটাই উজ্জ্বল হয় এটাই স্বাভাবিক। ইতিহাসের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গের জীবন পর্যালোচনা করলে তাঁদের প্রত্যেকেরই ছাত্রজীবনের উজ্জ্বলতা আগেই ভেসে ওঠে। তবে ছাত্রজীবনের মান শুধুমাত্র সনদ ও ডিগ্রী দ্বারাই নির্ধারিত হয় না বরং নৈতিকতা, যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতাই এক্ষেত্রে মূখ্য ভূমিকা রাখে।

মানুষের জীবনের মোড় যেমন ছাত্রজীবনের মানের উপর নির্ভর করে থাকে, তেমনিভাবে ছাত্রজীবনকে উজ্জ্বল করতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে তার সঙ্গ। এ প্রসঙ্গে “সৎ সঙ্গে স্বর্গবাস, অসৎ সঙ্গে সর্বনাশ” প্রবাদটি বেশ যৌক্তিক। একজন ছাত্রের জীবনে পাঠ্যপুস্তকসহ অন্যান্য সকল পুস্তক অধ্যয়ন, সময়ানূবর্তীতা এবং পড়া ও লিখার ভারসাম্যসহ অন্যন্য উপাদানসমূহ যেমনিভাবে ছাত্রজীবনকে প্রভাবিত করতে পারে, ঠিক তেমনি ভাবেই সঙ্গও ছাত্রজীবনকে অনেকটাই প্রভাবিত করে থাকে। কিন্তু সাধারনতই আমাদের দেশের অভিভাবকগণ তাঁদের সন্তানদের ছাত্রজীবনকে উন্নত করতে অন্যান্য সকল উপাদান ও বৈশিষ্ট্যের প্রতি যতটা খেয়াল রাখেন, সন্তানদের সঙ্গের প্রতি মোটেও ততটা নজর দেননা। অর্থাৎ একজন অভিভাবক তাঁর সন্তান সময়মতো ঘুম থেকে জেগে পড়ালিখা করছে কিনা, প্রাইভেট-কোচিং এ ঠিকমতো যাচ্ছে কিনা, পিতা মাতার আনুগত্য করছে কিনা এসবের যতটা খোঁজ নিয়ে থাকেন, তাঁর সন্তানটি কার সাথে বেশি সঙ্গ দিচ্ছে, অবসর সময়টুকু কোথায় কার সাথে, কেমন বন্ধুদের সাথে কাটায় এদিকে খুব বেশি খেয়াল রাখেন না। অথচ এই সঙ্গের দোষেই দেখা যায় একসময় অন্যান্য সকল উন্নত বৈশিষ্ট্যগুলো ধীরে ধীরে নি¤œ শিখরে নেমে আসে এবং ছাত্রজীবন মারাত্বক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে থাকে।

বর্তমানে অসৎ সঙ্গ একজন ছাত্রকে দুটি দিক দিয়ে বেশি আঘাত করছে এবং ঝুঁকির দিকে নিয়ে যাচ্ছে। তার একটি হচ্ছে মাদকাসক্তি আর অপরটি হচ্ছে অশ্লীলতা বেহায়াপনা। আজকাল বাংলাদেশে শিক্ষিতদের মধ্যে মাদকের বিস্তৃতি ব্যাপকভাবে লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এমনকি স্কুল পড়–য়া ছাত্রদের পকেটে গাঁজা ও সিগারেট সহ অন্যান্য মাদকদ্রব্য অহরহ দেখা যাচ্ছে। এর একটি উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হলো গত এসএসসি ২০১৮ পরীক্ষার কেন্দ্র থেকে গাঁজা সহ এসএসসি পরীক্ষার্থী আটক হওয়ার ঘটনা। এ ঘটনা থেকেই বোঝা যায় যে, ছাত্রদের মাঝে মাদক কতটা প্রভাব বিস্তার করেছে।

ছাত্রজীবনের অপর ঝুঁকিপূর্ণ দিকটি হচ্ছে অশ্লীলতা ও বেহায়াপনা। বর্তমানে পিতা-মাতা ও শিক্ষক-শিক্ষিকাদের প্রতি ছাত্র-ছাত্রীদের সম্মানবোধ যেমনটি লোপ পেয়েছে অশ্লীল ও বেহায়াপনা মূলক কাজের প্রবনতা বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং এসব কাজ সম্পাদনে ছাত্র-চাত্রীদের দ্বিধাবোধ একেবারেই কমে যাচ্ছে।

ছাতজীবনের উপরোক্ত দুটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় মাদক এবং অশ্লীল ও বেহায়াপনার সাথে জড়িত একজন ছাত্র কখনোই তার অপর একজন সঙ্গীকে সৎপথে পরিচালনায় নূন্যতম প্রেরণা ও উৎসাহ দিতে পারেনা। তাই ছাত্রজীবনে সঙ্গ নির্ধারনের ক্ষেত্রে বর্তমান সময়ে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে মাদকমুক্ত এবং অশ্লীলতা ও বেহায়াপনার সাথে জড়িত কিনা তা যাচাই করে বের করা। আর এই বিষয়টির প্রতি একজন ছাত্র বা ছাত্রী নিজের জন্য যতটুক গুরুত্ব দেবে, মাতা-পিতা বা অভিভাবকদেরও তেমনিভাবে গুরুত্ব দেয়া প্রয়োজন যে, তার সন্তানটি কোন মানের বা কোন চরিত্রের সঙ্গের সাথে সঙ্গ দিতে যাচ্ছে।
-লেখক : সাংবাদিক হাবিবুল বারি হাবিব