বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের কোচের পদে পরীক্ষায় সেই রিচার্ড পাইবাস!

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের কোচের পদে পরীক্ষায় সেই রিচার্ড পাইবাস!

 

চন্ডিকা হাথুরুসিংহের পদত্যাগের পর বেশ দ্রুত সময়ে নতুন কোচ নিয়োগ দিতে চাইছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। হাথুরুর উত্তরসূরি কে হবেন, সেটি এখনো নিশ্চিত না হলেও বাংলাদেশ দলের কোচ হওয়ার আগ্রহে আজ সন্ধ্যায় ঢাকায় আসছেন রিচার্ড পাইবাস।

আগামীকাল দুপুরে সাক্ষাৎকার দেওয়ার কথা পাইবাসের। ইংলিশ বংশোদ্ভূত এই দক্ষিণ আফ্রিকান কোচের ঢাকায় আসার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিসিবির মিডিয়া কমিটির প্রধান জালাল ইউনুস, ‘হ্যাঁ, তিনি আজ সন্ধ্যায় আসছে। তবে সাক্ষাৎকারের সময়টা নির্দিষ্ট করে বলতে পারছি না। হয়তো কাল দুপুরের দিকে বসবেন।’

 

পাইবাসের বাংলাদেশে আসা অবশ্য নতুন নয়। ২০১২ সালের মে মাসে মাশরাফি-সাকিব-তামিমদের কোচ হিসেবে স্টুয়ার্ট ল-এর স্থলাভিষিক্ত হয়েছিলেন। বিসিবির সঙ্গে তিক্ততায় ভরা ছিল তাঁর সাড়ে চার মাসব্যাপী কোচিং অধ্যায়। চুক্তিতে সই না করেই প্রধান কোচের দায়িত্ব পালন করেছিলেন তিনি। বিসিবির বার্ষিক ৪৫ দিনের ছুটির শর্তেও আপত্তি ছিল পাইবাসের। অনুশীলনে খেলোয়াড়দের স্বাস্থ্যসম্মত খাবার না দেওয়ার অভিযোগও তুলেছিলেন পাইবাস। বিসিবির বিপক্ষে এত সব অভিযোগের পর টিকে থাকাটা কঠিনই হয়ে গিয়েছিল পাইবাসের জন্য।

তবুও আবারও কেন পাইবাসে ফিরে যেতে চাচ্ছে বিসিবি? কঠোর ‘হেড মাস্টার’ হিসেবে বিসিবির বাহবা পেয়েছিলেন বিদায়ী কোচ হাথুরুসিংহে। মাঠের সাফল্য তো আছেই, সিনিয়র-তরুণ দলের সব খেলোয়াড়কে কঠোর নিয়ন্ত্রণে দলীয় শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনায় হাথুরুর ওপর ভীষণ সন্তুষ্ট ছিল বিসিবি।

হাথুরুর বিকল্প হিসেবে ক্ষুরধার ক্রিকেট মস্তিষ্কের পাশাপাশি কঠোর এক কোচকে খুঁজছে বিসিবি। এ বিবেচনাতেই আপাতত বিসিবির পছন্দের তালিকায় ওপরের দিকেই আছেন পাইবাস। তবে বিসিবির একটি সূত্র জানিয়েছে, সম্ভাব্য কোচদের যে সম্ভাব্য তালিকা আছে, সেটিতে আছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও আয়ারল্যান্ডের সাবেক কোচ ফিল সিমন্স এবং সাবেক অস্ট্রেলীয় খেলোয়াড়, কোচ ও নির্বাচক জিওফ মার্শ। তবে তাঁরা সাক্ষাৎকার দিতে আসবেন কি না, সেটি নিশ্চিত নয়।

পাইবাসের ঢাকায় আসার খবরে এটা পরিষ্কার, আগামী জানুয়ারিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে হোম সিরিজের আগেই দীর্ঘ মেয়াদে দলের একজন অভিভাবক খুঁজছে বিসিবি।

মন্তব্য নেই

উত্তর