শিশুর মেধার বিকাশে বাবা মায়ের জন্য ৬টি টিপস

শিশুর জন্মের পর থেকে প্রথম কিছু বছর তার শারীরিক ও মানসিক বিকাশের জন্য অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। এই কিছু বছরের কার্যকলাপের উপরেই শিশুর পরবর্তি জীবনের বুদ্ধিমত্তা নির্ধারন করে। অনেকেই হয়তো মনে করতে পারেন এই সময় শিশুর মেধাবিকাশের জন্য তেমন কোন কিছুর প্রয়োজন নেই। কিন্তু এই অবহেলাই শিশুর পরবর্তি জীবনের বড় কোন মানসিক সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে।
তাই শিশুর প্রথম বছরে বাবা-মা তার বিকাশে অবদান রাখতে পারেন এমন ছয়টি টিপস আপনাদের জন্য নিচে উল্ল্যেখ করছি।

১। শিশুর সাথে প্রতিদিন অনেকটা সময় জুড়ে বারবার কথা বলুন ও গল্প করুন। শিশুর চোখের দিকে তাকিয়ে কথা বলার চেষ্ঠা করুন।

২। শিশুকে বিভিন্ন রকমের গল্পের বই পড়ে শোনান ও ছড়া পড়ে শোনান।

৩। শিশুর নাম ধরে বারবার ডাকততে থাকেন। তাকে বিভিন্ন সময় সাধারণ কথায় অভ্যস্ত করে তোলেন। এতে শিশু মূল ব্যবহৃত শব্দগুলো সহজেই অতিদ্রুত আয়ত্ব করতে পারবে।

৪। যদি দেখা যায় যে আপনার সন্তান কোন নির্দিষ্ট বিষয়ে বারবার আনন্দিত হচ্ছে কিংবা নিজের উৎফুল্লতা প্রকাশ করছে তবে এ বিষয় নিয়ে শিশুর সাথে কথা বলুন বারবার। যেমন অনেক সময় শিশুরা নির্দিষ্ট কোন খেলনা , কোন মিউজিক বা কোন নির্দিষ্ট ব্যক্তি দেখলে আনন্দ পায়। এর প্রক্রিয়া যাতে সবসময় আপনার সন্তানের সাথে ঘটে সেদিকে নজর দিন।

৫। শিশু কি বলতে বা কি বোঝাতে চাইছে তা যথেষ্ঠ সময় ও ধৈর্য নিয়ে বুজতে চেষ্টা করুন। তার ব্যাপারটি বুঝতে পারছেন না বলে অযথা রাগ করবেন না বা ধৈর্য হারাবেন না। এতে শিশুর মানসিক সমস্যা তৈরি হতে পারে।

৬। শিশুর চোখের সামনে সবকিছু রঙ্গিন রাখতে চেষ্টা করুন। রঙ্গিন কাগজ, রঙ্গিন খেলনা এসব শিশুর মেধার বিকাশ ঘটাতে বেশ সাহায্য করে।

শিশুর জন্মের পর থেকে প্রথম কিছু বছর তার শারীরিক ও মানসিক বিকাশের জন্য অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। এই কিছু বছরের কার্যকলাপের উপরেই শিশুর পরবর্তি জীবনের বুদ্ধিমত্তা নির্ধারন করে। অনেকেই হয়তো মনে করতে পারেন এই সময় শিশুর মেধাবিকাশের জন্য তেমন কোন কিছুর প্রয়োজন নেই। কিন্তু এই অবহেলাই শিশুর পরবর্তি জীবনের বড় কোন মানসিক সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে।
তাই শিশুর প্রথম বছরে বাবা-মা তার বিকাশে অবদান রাখতে পারেন এমন ছয়টি টিপস আপনাদের জন্য নিচে উল্ল্যেখ করছি।

১। শিশুর সাথে প্রতিদিন অনেকটা সময় জুড়ে বারবার কথা বলুন ও গল্প করুন। শিশুর চোখের দিকে তাকিয়ে কথা বলার চেষ্ঠা করুন।

২। শিশুকে বিভিন্ন রকমের গল্পের বই পড়ে শোনান ও ছড়া পড়ে শোনান।

৩। শিশুর নাম ধরে বারবার ডাকততে থাকেন। তাকে বিভিন্ন সময় সাধারণ কথায় অভ্যস্ত করে তোলেন। এতে শিশু মূল ব্যবহৃত শব্দগুলো সহজেই অতিদ্রুত আয়ত্ব করতে পারবে।

৪। যদি দেখা যায় যে আপনার সন্তান কোন নির্দিষ্ট বিষয়ে বারবার আনন্দিত হচ্ছে কিংবা নিজের উৎফুল্লতা প্রকাশ করছে তবে এ বিষয় নিয়ে শিশুর সাথে কথা বলুন বারবার। যেমন অনেক সময় শিশুরা নির্দিষ্ট কোন খেলনা , কোন মিউজিক বা কোন নির্দিষ্ট ব্যক্তি দেখলে আনন্দ পায়। এর প্রক্রিয়া যাতে সবসময় আপনার সন্তানের সাথে ঘটে সেদিকে নজর দিন।

৫। শিশু কি বলতে বা কি বোঝাতে চাইছে তা যথেষ্ঠ সময় ও ধৈর্য নিয়ে বুজতে চেষ্টা করুন। তার ব্যাপারটি বুঝতে পারছেন না বলে অযথা রাগ করবেন না বা ধৈর্য হারাবেন না। এতে শিশুর মানসিক সমস্যা তৈরি হতে পারে।

৬। শিশুর চোখের সামনে সবকিছু রঙ্গিন রাখতে চেষ্টা করুন। রঙ্গিন কাগজ, রঙ্গিন খেলনা এসব শিশুর মেধার বিকাশ ঘটাতে বেশ সাহায্য করে।

শিশুর জন্মের পর থেকে প্রথম কিছু বছর তার শারীরিক ও মানসিক বিকাশের জন্য অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। এই কিছু বছরের কার্যকলাপের উপরেই শিশুর পরবর্তি জীবনের বুদ্ধিমত্তা নির্ধারন করে। অনেকেই হয়তো মনে করতে পারেন এই সময় শিশুর মেধাবিকাশের জন্য তেমন কোন কিছুর প্রয়োজন নেই। কিন্তু এই অবহেলাই শিশুর পরবর্তি জীবনের বড় কোন মানসিক সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে।
তাই শিশুর প্রথম বছরে বাবা-মা তার বিকাশে অবদান রাখতে পারেন এমন ছয়টি টিপস আপনাদের জন্য নিচে উল্ল্যেখ করছি।

১। শিশুর সাথে প্রতিদিন অনেকটা সময় জুড়ে বারবার কথা বলুন ও গল্প করুন। শিশুর চোখের দিকে তাকিয়ে কথা বলার চেষ্ঠা করুন।

২। শিশুকে বিভিন্ন রকমের গল্পের বই পড়ে শোনান ও ছড়া পড়ে শোনান।

৩। শিশুর নাম ধরে বারবার ডাকততে থাকেন। তাকে বিভিন্ন সময় সাধারণ কথায় অভ্যস্ত করে তোলেন। এতে শিশু মূল ব্যবহৃত শব্দগুলো সহজেই অতিদ্রুত আয়ত্ব করতে পারবে।

৪। যদি দেখা যায় যে আপনার সন্তান কোন নির্দিষ্ট বিষয়ে বারবার আনন্দিত হচ্ছে কিংবা নিজের উৎফুল্লতা প্রকাশ করছে তবে এ বিষয় নিয়ে শিশুর সাথে কথা বলুন বারবার। যেমন অনেক সময় শিশুরা নির্দিষ্ট কোন খেলনা , কোন মিউজিক বা কোন নির্দিষ্ট ব্যক্তি দেখলে আনন্দ পায়। এর প্রক্রিয়া যাতে সবসময় আপনার সন্তানের সাথে ঘটে সেদিকে নজর দিন।

৫। শিশু কি বলতে বা কি বোঝাতে চাইছে তা যথেষ্ঠ সময় ও ধৈর্য নিয়ে বুজতে চেষ্টা করুন। তার ব্যাপারটি বুঝতে পারছেন না বলে অযথা রাগ করবেন না বা ধৈর্য হারাবেন না। এতে শিশুর মানসিক সমস্যা তৈরি হতে পারে।

৬। শিশুর চোখের সামনে সবকিছু রঙ্গিন রাখতে চেষ্টা করুন। রঙ্গিন কাগজ, রঙ্গিন খেলনা এসব শিশুর মেধার বিকাশ ঘটাতে বেশ সাহায্য করে। 

আয়েশা রাইসুল,দেশিডক্টর হেলথ ডেস্ক