ইন্দো-বাংলা সীমান্তে ভারতের ‌‘স্মার্ট নজরদারি’ শুরু মঙ্গলবার

আসামের ইন্দো-বাংলাদেশ সীমান্তে নদীর তীরবর্তী একটি অঞ্চলকে ‌‘ইলেক্ট্রনিক বা স্মার্ট নজরদারি’র আওতায় আনা হচ্ছে। মঙ্গলবার থেকে সেখানে সিসিটিভি ক্যামেরাসহ বিশেষ প্রযুক্তি বসানো হবে বলে জানিয়েছে ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। তারা জানায়, সীমান্তের যেখান দিয়ে সবচেয়ে বেশি অনুপ্রবেশের আশঙ্কা থাকে সেখানেই এই ব্যবস্থা চালু করা হচ্ছে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইকোনোমিক টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়, আসামের ধুবরি জেলার আন্তর্জাতিক সীমারেখা ৬১ কিলোমিটারজুড়ে এই ‌‘স্মার্ট বেস্টনি’ বসানো হবে। বোল্ড-কিউআইটি (বর্ডার ইলেক্ট্রনিকালি ডমিনেটেড ইন্টারসেডশন টেকনিক) নামের এই প্রকল্পটি উদ্বোধন করবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজানাথ সিং।

এক বিবৃতিতে মন্ত্রণালয় জানায়, নদী ও চর এলাকাবর্তী সীমান্তেই মূলত এই নজরদারি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কারণ সেখানে সীমান্তরক্ষী বাহিনীর টহল কঠিন। বিশেষ করে বৃষ্টির মওসুমে। এই সংকট সমাধানে ২০১৭ সালে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এই প্রযুক্তিগত সহায়তা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। এরপর ২০১৮ সালের জানুয়ারি মাসেই বিএসএফের তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ এই প্রকল্প শুরু করে এবং দ্রুততার সঙ্গে এর কাজ শেষ করে। প্রকল্পটির মাধ্যেম ইন্দো-বাংলা সীমান্তে কাঁটাতারবিহীন এলাকাগুলো নজরদারির আওতায় আনতে পারবে বিএসএফ।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, স্মার্ট নজরদারির ফলে এখন ব্রহ্মপুত্রের সম্পূর্ণ এলাকা বিএসএফের নজরদারিতে থাকবে। এর মাধ্যমে সীমান্তে অনুপ্রবেশ ঠেকাতে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে সক্ষমত হবে তারা।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, নদী তীরবর্তী সীমান্ত এলাকা দিয়েই সবচেয়ে বেশি মানুষ অনুপ্রবেশ করে। আসে অস্ত্র। স্মার্ট বেস্টনির মাধ্যমে এই সমস্যার সমাধান করা যাবে।