দ্রুত প্রবৃদ্ধিতে বিশ্বে দ্বিতীয় বাংলাদেশ: আইএমএফ

বিশ্বের দ্রুত অর্থনৈতিক বর্ধনশীল তিন দেশের মধ্যে ঠাঁই পেয়েছে বাংলাদেশ। মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল-আইএমএফ প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এই তথ্য তুলে ধরা হয়। প্রতিবেদনে বলা হয়, চলতি বছর বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি হবে ৭ দশমিক ৩ শতাংশ।

‘ওয়ার্ল্ড ইকোনোমিক আউটলুক, এপ্রিল ২০১৯: গ্রোথ শোডাউন, প্রিকরাস রিকভারি’ শীর্ষক ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, চলতি বছর বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ৩ শতাংশে দাঁড়াবে, যা বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। ভারতের প্রবৃদ্ধির হারও একই। অন্যদিকে বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুত অর্থনৈতিক বর্ধনশীল দেশ রুয়ান্ডা। তাদের প্রবৃদ্ধি দাঁড়াবে ৭ দশমিক ৮। বিশ্বে এই তিনটি দেশেরই প্রবৃদ্ধিই শুধু সাতের বেশি।

এর আগে বিশ্বব্যাংক ও এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকও এমন প্রবৃদ্ধির কথা জানিয়েছিলো। বিশ্বব্যাংক জানিয়েছিলো বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি চলতি বছর দাঁড়াবে ৭ দশমিক ৩ শতাংশ। আর এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক জানায়, বাংলাদেশে বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুত বর্ধনশীল অর্থনৈতিক দেশ। চলতি বছর ৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হওয়ারও সম্ভাবনা রয়েছে বাংলাদেশের।

মঙ্গলবার আইএমএফ জানায়, বাংলাদেশের মুদ্রস্ফীতির চাপ এই বছর কম থাকবে। গত বছর মুদ্রাস্ফীতির হার ছিলো ৫ দশমিক ৬। চলতি বছর এটা হবে ৫ দশমিক ৪।

দক্ষিণ এশিয়ার অন্যান্য দেশের মধ্যে ভুটানের প্রবৃদ্ধি ৪.৮, মালদ্বীপের ৬.৩, নেপালের ৬.৫, শ্রীলঙ্কার ৩.৫ এবং পাকিস্তানের ২.৯ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে। তবে বৈশ্বিকভাবে অর্থনীতি কিছুটা ধীরগতির হবে। প্রবৃদ্ধি ৩.৬ শতাংশ থেকে নেমে দাঁড়াবে ৩.৩-এ। চীন, যুক্তরাষ্ট্র, ইতালি ও জাপানের মতো বড় অর্থনৈতিক দেশগুলোর কারণে এই ধস নামছে। এছাড়া চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যকার চলমান বাণিজ্যিক উত্তেজনাও অন্যতম কারণ।